গর্ভাবস্থায় এই কাজগুলো করুন , সৌন্দর্য্য থাকবে অটুট

রিয়া মন্ডল: প্রতিটি মেয়ের জীবনে সবচেয়ে সুন্দর পর্যায়গুলির মধ্যে একটি হল গর্ভাবস্থা ৷ তবে গর্ভাবস্থার এই দিনগুলিতে মহিলারা নানা শারীরিক সমস্যার সম্মুখীন হয়ে থাকেন ৷

এই সময়ে শরীরে নানা হরমোনগত পরিবর্তন ঘটে থাকে ৷ তাই অনেক সময় শরীর এর সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারে না ৷ কারো ক্ষেত্রে সেটি নানা ধরনের জটিলতার সৃষ্টি করে ৷এর মধ্যে একটি মারাত্নক প্রভাব যা শরীরের বাহ্যিক অংশ তথা ত্বকেও দেখা দেয় ৷ হঠাৎ ব্রণ, ত্বকে চুলকানি এবং পিগমেন্টেশন হয় যার কারণে যেমন ত্বকের সমস্যা হয় ৷ খানিকটা পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যাওয়ার কারনে ত্বক সহজেই হারাতে পারে সৌন্দর্য্য। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই সময়ে সৌন্দর্য্য ধরে রাখতে বিশেষ পরিচর্যার দরকার ৷

○গর্ভাবস্থায় সৌন্দর্য্য ধরে রাখতে ঘরে বসেই করুন এই কাজগুলো

ত্বকে স্বাভাবিক রক্ত ​​সরবরাহের পরিমান বাড়ার কারনে পেটের নিচের অংশে চুলকানি অনুভব করা অতি সাধারণ ঘটনা । এতে কখনই ক্যামিক্যাল দিয়ে তৈরী কিছু ব্যবহার না করাটাই ভালো । এর পরিবর্তে অ্যালোভেরা জেল, বাদাম তেল এবং নারকেল তেল লাগাতে পারেন ৷ এটি আপনার ত্বককে নরম, কোমল এবং উজ্জ্বল রাখবে ৷

এই সময়ে শরীরে ডিহাইড্রেশনের পরিমান বেড়ে যায় ৷ এর কারনে ত্বক শুকিয়ে যেতে পারে ৷ তাই এই সময়ে প্রচুর জল পান করে শরীরকে সর্বদা হাইড্রেটেড রাখবেন । এটি একদিকে আপনার শরীর থেকে সমস্ত বিষাক্ত পদার্থ বের করতে সহায়তা করবে অপরদিকে এটি পর্যাপ্ত অ্যামনিয়োটিক তরল নিশ্চিত করবে ৷ যার কারনে গর্ভের সন্তান ও বেশ স্বাচ্ছন্দ্য অনুভব করবে ৷

গর্ভবতী মহিলাদের তলপেট ও স্তনের পাশে অবিচ্ছিন্ন প্রসারিত চিহ্নগুলিতে প্রচন্ড চুলকানি দেখা দিতে পারে ৷ এগুলি হ্রাস করতে প্রথমাবস্থায় উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলে ভেষজ হোমিওপ্যাথিক বা আয়ুর্বেদিক ক্রিম ব্যাবহার করতে পারেন । গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে এই ধরনের জটিলতা দেখা দিলে চিকিৎসকের শরনাপন্ন হোন ৷

কারও ত্বক যদি তৈলাক্ত এবং ব্রণজনিত হয় তবে গর্ভাবস্থার প্রথম ত্রৈমাসিকের সময় তার ব্রেকআউট হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। সুতরাং চর্ম বিশেষজ্ঞের পরামর্শের পরে গ্লাইকোলিক অ্যাসিড, আলফা হাইড্রোক্সি অ্যাসিড, এরিথ্রোমাইসিনযুক্ত এমন পণ্য ব্যবহার করুন। প্রতিদিন একটি ভালো ফেস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধোবেন।

হরমোনগত পরিবর্তনের কারণে কিছু মহিলার গাল, কপাল, ঘাড় এবং এমনকি বগলে পিগমেন্টেশন অনুভব করে। একটুকরা শসা ও একটুকরা লেবু নিয়ে সেটিকে রস করে নিন । এবার ভালোভাবে মালিশ করে দাগগুলোতে লাগিয়ে দিন ৷ এই সময়ে ত্বকের দাগ দুর করতে মধু, ওট এর মাস্কও ব্যবহার করতে পারেন, আর হলুদ এবং কাঁচা দুধের তৈরি ফেস প্যাক ব্যাবহার করলেও ক্ষতি নেই ৷

○ গর্ভাবস্থার কোনও পর্যায়ে ত্বক শুষ্কত, চুল পড়া, ফাটা ঠোঁট থাকে। ক্রিম, নারকেল তেল এবং তেল এই সময়ের মধ্যে শুষ্ক এবং ফাটলযুক্ত ত্বকের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য বিশেষ উপকারী। এছাড়াও, শুকিয়ে যাওয়া রোধ করতে আপনার স্তনবৃন্তগুলিতে প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং ফ্যাটি অ্যাসিডের সমৃদ্ধ উৎস প্রয়োগ করুন।




%d bloggers like this: