পাল্টা সভায় সরগরম দাঁতনের রাজনীতি, তৃণমূলের সভায় জনজোয়ার

শান্তনু রায়,পশ্চিম মেদিনীপুর: শাসক বিরোধী সভা পাল্টা সভায় সরগরম দাঁতনের রাজনীতি। রবিবার দাঁতনে বিজেপির রোডশোর করে। যার প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সদ্য তৃনমূল ত্যাগী শুভেন্দু অধিকারী ।

রবিবার দাঁতনের হাসপাতাল মোড় থেকে সরাইবাজার পর্যন্ত পদযাত্রা জনজোয়ারে পরিনত হয়। বিজেপি সভা ও রেলির পাল্টা আজ তৃনমূল কংগ্রেসের পদযাত্রা ও সভার আয়োজন রয়েছে দাঁতনে । তারই প্রস্তুতি চলছে জরকদমে । কার্ট আউট ও ফ্লাগে সেজে উঠেছে দাঁতন।

এদিন বঙ্গধ্বনী যাত্রার মধ্য দিয়ে রবিবার বিজেপির মিছিল ও সভার পাল্টা সভা করল তৃণমূল। সোমবার দাঁতন ১ নং ব্লক তৃনমূল কংগ্রেসের উদ্যগে পাল্টা সভাতে উপস্থিত ছিলেন যুব তৃণমূলের মুখপাত্র দেবাংশু ভট্টাচার্য ও জেলা সভাপতি অজিত মাইতি, দাঁতনের বিধায়ক বিক্রমচন্দ্র প্রধান,জেলা আই এই টি টি ইউ সির সভাপতি নির্মল ঘোষ সহ অনেকেই। এদিনের এই মিছিল দাঁতন হাসপাতালের সামনে থেকে সরাইবাজার পর্যন্ত সংগঠিত হয়।

এদিনের এই মিছিল জনজোয়ারে পরিনত হয়।রবিবার শুভেন্দু অধিকারী জেলার নেতা ও বিধায়কদের বঞ্ছনার কথা তুলে ধরে
বলেছিলেন কলকাতাই সব মন্ত্রিত্ব নিয়ে বসে আছে। শুভেন্দু দক্ষিণ কলকাতার সঙ্গে জেলার বঞ্চনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের কথা বলেছিলেন। তার জবাবে এদিন দেবাংশুর বক্তব্য,” তিনি বলেছেন জেলার লোক নাকি মন্ত্রিত্ব পায়নি। আপনি তো নন্দীগ্রাম বিধানসভা থেকে জিতেছিলেন, আপনার তো তিনখানা মন্ত্রিত্ব ছিল। এত যদি জেলার বিধায়কদের প্রতি প্রেম একটা রেখে বাকি দুটো কেন ফেরত দিলেন না। তখন মায়া হয়নি। বিজেপিতে যাওয়ার পর এখন মায়া হয়েছে ?”
মেদিনীপুরের সভায় শুভেন্দুর দলবদল নিয়ে সমালোচনা করতে শোনা যায় দেবাংশুকে,” বাংলা আন্দোলন করেছিল বলে দুই গুজরাটি ভাই নরেন্দ্র মোদী আর অমিত শাহেরা দেশের শাসন ভোগ করছে। তাদের পায়ে যখন স্বাধীনতা আন্দোলনের মেদিনীপুরের মাটির একজন মানুষ যখন মাথা নীচু করে তখন মেদিনীপুর তাকে প্রত্যাখ্যান করে।

মেদিনীপুর তাকে গ্রহণ করে না।” দুই মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রাম থেকে বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি পঁয়ত্রিশটি আসন পাবে শুভেন্দুর এই জবাব ফিরিয়ে দেবাংশুর জবাব,” সাড়ে তিনটিও আসন পাবে না।”
তৃণমূলের জমানায় পরিবর্তন হয়নি বলেই তৃণমূলকে খোঁচা দিয়েছিলেন দলবদলু শুভেন্দু। তারও জবাব দিতে ছাড়েননি তৃণমূলের এই মুখপাত্র। তিনি বলেন,” ২০১৬ সাল থেকে আপনি পরিবহন দফতরের মন্ত্রী ছিলেন। গত পাঁচবছরে তাহলে আপনি পরিবহনে পরিবর্তনে ব্যর্থ। তাই তো ?

এদিনের সভা ছিল বিজেপির মিথ্যাচার ও অপপ্রচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ মিছিল ও ধিক্কার সভার আয়োজন করেছিল তৃণমূল। এদিনের বিকেলের মিছিল ও সভায় বহু মানুষ যোগ দেন। তবে একে শুভেন্দুর পাল্টা সভা বলতে নারাজ তৃণমূল। ” এদিনের সভা থেকেও শুভেন্দুকে তৃণমূল নেতৃত্বরা গদ্দার, বেইমান, বিশ্বাসঘাতক বলেন।




%d bloggers like this: