করোনার নয়া স্ট্রেনে আতঙ্ক নেই: ওয়ার্ল্ড হেল্থ অরগানাইজেশন

নিজস্ব প্রতিবেদন: করোনার প্রথম ঢেউ কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসার পরই দেশের বেশ কিছু রাজ্যে আছড়ে পড়েছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ যাতে ফের আতঙ্কের সৃষ্টি না করে তারজন্য ইতিমধ্যে পদক্ষেপ নিয়েছে বেশকিছু রাজ্য। তবে এরই মধ্যে দেশবাসীর জন্য স্বস্তির খবর যে দেশে করোনার প্রকোপ এখন অনেকটাই কম। দেশে সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দেড় লাখের নীচে নেমেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে ভারতে সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৪৭ হাজার ৩০৬ জন।

প্রসঙ্গত, ৫ ফেব্রুয়ারি থেকে গত সোমবার পর্যন্ত দেশে দেড় লাখের নীচেই ছিল সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছিল। কিন্তু সোমবার করোনা সংক্রমণ ছাপিয়ে গিয়েছে দেড় লাখ। আর তারফলেই কার্যত চিন্তার ভাঁজ পড়েছিল বিশেষজ্ঞ মহলের কপালে। কিন্তু, ফের স্বস্তি ফিরিয়েছে মঙ্গলবারের করোনার পরিসংখ্যান।

একদিকে যখন দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কমছে, অন্যদিকে নতুন করে চিন্তায় ফেলছে করোনার নতুন স্ট্রেইন। ১৮৭ জনের শরীরে এখনও পর্যন্ত দেশে ব্রিটেনের স্ট্রেইনের উপস্থিতি মিলেছে। দক্ষিণ আফ্রিকাতে ৬ জনের শরীরে এবং এবং ব্রাজিলীয় স্ট্রেইন পাওয়া গিয়েছে ১ জনের শরীরে করোনার এই নয়া স্ট্রেইন পাওয়া গিয়েছে। তাঁদের সংস্পর্শে আসা প্রত্যেকের করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে এবং নির্দিষ্ট সময়ের জন্য কোয়ারেন্টাইনে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে যদিও করোনা টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে দেশে। এবং বিশেষজ্ঞরা আশা করছেন, করোনা ভাইরাসের করাল থাবা থেকে এই টিকা মুক্তি দেবে। কিন্তু, এই নতুন করোনা স্ট্রেইন প্রতিহত করতে এই নয়া করোনা টিকা কতটা সক্ষম, তা নিয়ে এখনও সংশয় রয়েছে বিশেষজ্ঞদের মনে।

জানা গিয়েছে, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য় মন্ত্কের তরফে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, বিগত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১০ হাজার ৫৮৪ জন। এখনও পর্যন্ত দেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১ কোটি ১০ লাখ ১৬ হাজার ৪৩৪ জন। এরমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১ কোটি ৭ লাখ জন। জানা গিয়েছে, সোমবার নতুন করে করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৭৮ জন। এখনও পর্যন্ত দেশে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ১ লাখ ৫৬ হাজার ৪৬৩ জনের। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর)-এর তথ্য অনুযায়ী, ২২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দেশে ২১কোটি ২২ লাখ ৩০ হাজার ৪৩১ নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছ। সুস্থের সংখ্যার দিকে নজর দিলে বলা যায়, দেশজুড়ে সামগ্রিক পরিস্থিতি ভালোর দিকে। কিন্তু মহারাষ্ট্র এবং কেরলে করোনার সংক্রমণ ক্রমশ বাড়ছে। আর তাদের ভয় পাচ্ছেন সেখানের সরকার।

সূত্রের খবর, করোনার দক্ষিণ আফ্রিকার এই নয়া স্ট্রেইনটি ছড়িয়েছে ৪১টি দেশে। ৮২টি দেশে ব্রিটেনের স্ট্রেইনটি ছড়িয়েছে এবং ৯টি দেশে ব্রাজিলের স্ট্রেইন ছড়িয়েছে। ভারতে বিদেশি নয়া স্ট্রেইনগুলির সংক্রমণ দেশে ঠেকানো প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যসচিব জানান, “ব্রিটেন থেকে আসা সমস্ত যাত্রীদের RT-PCR পদ্ধতিতে করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। করোনা পজেটিভদের ভাইরাসের জিনক্রোমও পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, নতুন স্ট্রেইনগুলি অনেক বেশি সংক্রামক। তবে অযথা আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই বলে মত WHO-র। যাবতীয় করোনা বিধি মেনে চললেই এই স্ট্রেইনের সংক্রমণ প্রতিহত করা সম্ভব, জানাচ্ছে অভিজ্ঞ মহল”।




%d bloggers like this: