Splusnews Kolkata
শনিবার , ২৪ এপ্রিল ২০২১ | ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. আন্তর্জাতিক
  2. কলকাতা
  3. খেলাধুলা
  4. চাকরী
  5. ট্রেন্ড
  6. দেশ
  7. পশ্চিমবঙ্গ
  8. প্রযুক্তি
  9. বানিজ্য
  10. বাংলাদেশ
  11. বিনোদন
  12. বিশেষ
  13. ভাইরাল
  14. মতামত
  15. রাজনীতি

কোভিড সংক্রমণের শিরোনামে মেদিনীপুর, ফাঁকা মাঠেই বসানো হল বাজার

প্রতিবেদক
splusnews
এপ্রিল ২৪, ২০২১ ১০:৪৩ পূর্বাহ্ণ
কোভিড সংক্রমণের শিরোনামে মেদিনীপুর, ফাঁকা মাঠেই বসানো হল বাজার

তারক হরি, পশ্চিম মেদিনীপুর : কোভিড শিরোনামে উঠে এসেছে মেদিনীপুর জেলা ৷ তাই ভিড় এড়াতে শহরের প্রায় সমস্ত দৈনিক হাট ও বাজার গুলিকে এলাকার ফাঁকা মাঠ গুলি তে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। মেদিনীপুর শহরের রেল স্টেশন সংলগ্ন গেট বাজারটিকে বিধাননগর মাঠে স্থানান্তরিত করা হয়েছে, কোতোয়ালী বাজার ও বাংলা স্কুলের মাঠে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। শহরের ঘিঞ্জি, জমজমাট অন্যান্য বাজার গুলিও যেমন, রাজাবাজার ও স্কুলবাজারও স্থানান্তরিত করার ভাবনা চলছে ।

গোটা পশ্চিম মেদিনীপুরের মতই ডেবরা, পিংলা ও সবংয়ের অবস্থাও বেশ উদ্বেগজনক! লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। দৈনিক বাড়ছে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। ইতিমধ্যেই রাশ সামলাতে মাঠে নেমেছে স্থানীয় প্রশাসন। এলাকায় মাইকিং করা হচ্ছে, বাইরে বের হলেই মাস্ক ব্যবহারের অনুরোধ করা হচ্ছে। কেবল অতিবশ্যকীয় প্রয়োজনেই বাইরে বের হোন, বলে প্রচার চলছে। এলাকা নিয়ন্ত্রণে জোর কদমে মাঠে নেমেছে প্রশাসন ৷
শুক্রবার সকাল থেকেই ডেবরার নিত্যপ্রয়োজনীয় বাজার টিকে নিকটস্থ ডেবরা হরিমতি স্কুল ময়দানে স্থানান্তরিত করা হয় । তবে,‌ বাজার ফাঁকা মাঠে ‌সরানো হলেও, দেখা গেল মাস্ক নেই অনেকের মুখেই। থাকলেও কারুর আবার থুতনির কাছে ঝুলছে মাস্ক ! সাধারণ মানুষ সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে ভিড় এড়িয়ে যাতে কেনা বেচা করতে পারে তার জন্যই এই ব্যবস্থা ৷

প্রসঙ্গত, শুক্রবার সকালে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে প্রাপ্ত রিপোর্ট অনুযায়ী তার আগের চব্বিশ ঘণ্টায় পশ্চিম মেদিনীপুরে করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ১২১ জন। আরটিপিসিআর টেস্টে ৫৫, অ্যান্টিজেন টেস্টে ৪২ জন এবং শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালের ট্রুন্যাট টেস্ট অনুযায়ী ২৪ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। গত এক সপ্তাহে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় করোনা সংক্রমিত প্রায় হাজার (৯৩৩) জন। এবং গত এক সপ্তাহে প্রায় ১৪ থেকে ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।

জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ নিমাই চন্দ্র মন্ডল জানিয়েছেন, “জেলার করোনা পরিস্থিতি এখনও পর্যন্ত নিয়ন্ত্রণেই আছে। তবে, সাধারণ মানুষকে কঠোরভাবে কোভিড বিধি মেনে চলতে হবে।”এলাকার অন্যান্য বাজার গুলি কেও খুব শীঘ্রই স্থানান্তরিত করা হবে ৷
জেলার উপ মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ সৌম্যশঙ্কর সারেঙ্গী জানিয়েছেন, এই পরিস্থিতিতে জেলার প্রতিটি করোনা হাসপাতালের শয্যা সংখ্যাও বৃদ্ধি করা হয়েছে। শালবনী সুপার স্পেশালিটি’কে পুনরায় করোনা হাসপাতাল রূপে গড়ে তোলা হয়েছে। ইতিমধ্যেই হাসপাতালটিকে শয্যা সংখ্যা ৫০ থেকে বাড়িয়ে ২০২ তে উন্নীত করা হয়েছে ৷

সর্বশেষ - পশ্চিমবঙ্গ

আপনার জন্য নির্বাচিত