বিশ্বভারতীর রাস্তা নিয়ে ফের উত্তপ্ত শান্তিনিকেতন, পাল্টাপাল্টি প্রতিবাদ কর্মসূচী

রোহিত সেখ , বীরভূম: বিক্ষোভ-অবস্থানে শনিবার সকাল থেকেই উত্তপ্ত বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় ৷ এদিন সকালে রাস্তা ফেরতের দাবিতে অবস্থান বিক্ষোভে শামিল হন উপাচার্য এবং অধ্যাপকরা। উপাচার্য বিশ্বভারতীকে গৈরিকীকরণের চেষ্টা করছেন এই অভিযোগে বিক্ষোভ দেখায় বাম ছাত্র সংগঠন।

উপাচার্যের বিরুদ্ধে ক্ষোভপ্রকাশ করে অবস্থান বিক্ষোভে অংশ নেন কবিগুরু মার্কেট এবং বোলপুর ব্যবসায়ী সমিতির সদস্যরা।

প্রসঙ্গত উপাচার্য থাকাকালীন এই রাস্তাটি রাজ্যের কাছ থেকে চেয়েছিলেন স্বপন দত্ত । বছরখানেক আগে তা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে দেওয়া হয়। তবে মাসছয়েক আগে থেকে বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছিল। সেখানে ব্যারিকেডও লাগিয়ে দেওয়া হয়। রাস্তাটি কোনওভাবে সকলে ব্যবহার করতে পারবেন না বলেও জানিয়ে দেওয়া হয়। শুরু হয় যান নিয়ন্ত্রণ। এমনকী ওই রাস্তায় দাঁড়িয়ে বিশ্বভারতীর ছবিও তোলা যাবে না বলে নোটিস দিয়ে জানিয়ে দেয় কর্তৃপক্ষ। তার ফলে ওই রাস্তার দু’পাশে বসবাসকারীরা অত্যন্ত সমস্যায় পড়েন।

একাধিকবার বিক্ষোভ দেখান তাঁরা। এই সমস্যা সমাধানের জন্য অমর্ত্য সেন-সহ অনেকেই চিঠি পাঠান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে । তারপরই গত বছর বোলপুরের প্রশাসনিক বৈঠকে রাস্তা ফেরত নিয়ে নেয় রাজ্য সরকার।

তারই প্রতিবাদে শনিবার সকাল থেকে ছাতিমতলায় অবস্থান বিক্ষোভে শামিল হন বিশ্বভারতীর উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী-সহ কর্মী ও অধ্যাপকেরা। উপাচার্যের অবস্থান শুরুর প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই বিক্ষোভে শামিল হন বাম ছাত্র সংগঠনের সদস্যরা। তাঁদের দাবি, উপাচার্য বিশ্বভারতীতে গৈরিকীকরণের চেষ্টা করছেন। অবস্থান শেষের পর রবীন্দ্রভবনের সামনে ছাতিমতলা থেকে দরজা দিয়ে বেরনোর সময় রাস্তা আটকে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন বাম ছাত্র সংগঠনের সদস্যরা। এসময় নিরাপত্তারক্ষীরা বাধা দিলে ধস্তাধস্তির ঘটনা ঘটেছে ৷




%d bloggers like this: