মদের দোকানে অভিনব চুরি,আটক হয়নি কেউ

রামকৃষ্ণ চ্যাটার্জী ও মহেশ্বর দে , আসানসোল :
অভিনব উপায়ে একটি ওয়াইন অফ সপে (খুচরো দেশী ও বিদেশী মদ বিক্রির দোকান) লুঠপাট চালালো দূষ্কৃতিরা। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার মাঝরাতে আসানসোল দক্ষিণ থানার এসবি গরাই রোডের একটি লাইসেন্সপ্রাপ্ত মদের দোকানে। বুধবার সকালে দোকানের শাটার ভাঙ্গা অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন দোকান সংলগ্ন বহুতল ও আশপাশের লোকেরা। তারপরই জানা যায় যে, দোকানে চুরি হয়েছে। স্বাভাবিক ভাবেই এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে আসে দোকান মালিক শহরের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী পশ্চিম বর্ধমান জেলা চেম্বার অফ কমার্সের সভাপতি ভিকে ( পাপ্পু) ঢল। আসে আসানসোল দক্ষিণ থানায় পুলিশও। মদের দোকানের সিসি ক্যামেরার হার্ডডিস্ক দূষ্কৃতিরা দোকান লুঠ করার সময় নিয়ে চলে যায়। তবে দোকানের ঠিক পাশেই একটি বেসরকারি ব্যাঙ্কের শাখা ও এটিএম রয়েছে। সেখানে লাগানো আছে সিসি ক্যামেরা। পুলিশ সেই সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করেছে। সেই ফুটেজ খতিয়ে দেখে পুলিশ দূষ্কৃতিদের সনাক্ত করার চেষ্টা করছে।

দোকান মালিক জানিয়েছেন, সিসি ক্যামেরায় দেখা যাচ্ছে, মঙ্গলবার রাত সাড়ে বারোটা নাগাদ দূষ্কৃতিরা আসে। প্রায় আড়াইটে পর্যন্ত দোকানে ছিলো। দোকানের পেছনের একটি শাটার ভেঙে তারা দোকানের ভেতরে ঢোকে। দোকানের ভেতরে বসে তারা মদ খায়। পরে দোকানের ক্যাশবাক্সে থাকা ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা নগদ ও প্রায় ৩ লক্ষ টাকার দেশী ও বিদেশী মদ লুঠ করে দূষ্কৃতিরা।

পুলিশ সূত্রে আরো জানা গেছে, দূষ্কৃতিরা সংখ্যায় ৫ জন ছিলো। প্রথমে তারা শাটার ভাঙ্গার চেষ্টা করে। কিন্তু, সেটা করতে না পারায় দূষ্কৃতিরা শাটারের একদিকের লোহার প্যানেল ভেঙ্গে দেয়। তারপর তারা দোকানের ভেতরে ঢোকে। সেখানে বসে নিশ্চিন্তে তারা মদ খায়। এরপর ক্যাশ বাক্স থেকে টাকা নেয়। তারপর তারা দোকানের ভেতর থেকে মদের পেটি বার করে উল্টো দিকের পোস্ট অফিসের বারান্দায় রাখে। পরে সেখান থেকে সম্ভবত কোন গাড়িতে মদের পেটি চাপিয়ে এলাকা ছেড়ে চম্পট দেয়। বলতে গেলে সবকিছুই সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়েছে।

তবে, এইভাবে প্রকাশ্য রাস্তায় মদের দোকানে চুরি হওয়ায় চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। কেননা, এলাকায় ব্যাঙ্ক রয়েছে। এলাকায় পুলিশ টহল দেওয়ার কথা। জানা গেছে, গত কয়েক দিন ধরে এসবি গরাই রোডের এই অংশে স্ট্রিট লাইট জ্বলছে না। সবমিলিয়ে মনে করা হচ্ছে, দূষ্কৃতি দল পরিকল্পনা করেই এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে। পুলিশ জানায়, ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে।




%d bloggers like this: