চা চক্রে দিলীপ ঘোষের নিশানায় ফের মমতা,বাদ যায়নি অমার্ত্য সেন

শ্রীশা চৌধূরী, নিজস্ব প্রতিবেদক: আবারও চা চক্রে তোপ দাগলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ৷ এদিন একের পর এক নিশানা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে।

শনিবার সকালে বামঘাটায়। বামঘাটা চা চক্রে রাজ্য সভাপতি দিলিপ ঘোষ সংঘর্ষের প্রসঙ্গ তুলে শব্দ বোমায় দফায় দফায় তৃণমূলকে আক্রমণ করেন ।

বামঘাটার চায়ে পে চর্চায় গিয়ে তৃণমূলকে হুশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, “যেদিন সত্যি সত্যি মারতে শুরু করব, ব্যান্ডেজ বাধার জায়গা পাবে না।”

এদিন তিনি অমর্ত্য সেন কে নিয়েও মন্তব্য করেন। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলিপ ঘোষ বলেন এটা দুর্ভাগ্যের যে অমর্ত্য সেন একজন অসফল মুখ্যমন্ত্রীর কথায় প্রভাবিত হলেন।”বিজেপির কারও সার্টিফিকেট লাগবে না। উনি যাঁদের হয়ে ব্যাটিং করছেন সেটাই করুন।

অমর্ত্য সেন একজন অসফল মুখ্যমন্ত্রীর কথায় প্রভাবিত হলে সেটা দুর্ভাগ্যের।” পাশাপাশি দিনহাটার ঘটনায় দিলীপ ঘোষের প্রতিক্রিয়া, “তৃণমূলের হারার সম্ভবনা যত বাড়ছে তত হিংস্র হচ্ছে। আরও খুন খারাপি বাড়বে। পুলিসকে পুরো নপুংসক বানিয়ে রাখা হয়েছে।”

রাজ্য সভাপতি দিলিপ ঘোষ আরও বললেন,”আমাকে ৪০টা কেস দিয়েছে। যার তার নামে কেস দিচ্ছে। বিজেপি করলেই কেস। তাও চড় মারিনি। সিদ্ধার্থ শঙ্করের আমল থেকে চলছে হিংসার রাজনীতি। সিপিএম যা করেছে, তৃণমূল তাই করছে। মোদীজি টাকা পাঠাচ্ছে, তৃণমূল সব খেয়ে নিচ্ছে।

বিজেপি করলেই, মারধর করছে। পিসি, ভাইপোর রাজনীতি চলবে না। পঞ্চায়েত নির্বাচন হল, ভোট দিতে দেয়েনি ওরা।

আমাদের লোকেদের নোমিনেশন পর্যন্ত দিতে দেয়নি। বিডিও কে পর্যন্ত ঘিরে রেখেছিল। আর মুখ্যমন্ত্রী বলছে, বিজেপি ঝামেলা করছে। বিজেপি ঝামেলা শুরু করলে, আর ঘরে থাকতে পারবে না। চাষিদের জন্য কেন্দ্রীয় সরকার অনেক কিছু করেছে। কালিঘাটে এখন প্রণামি দিতে হয়।

কাটমানি কাউকে খেতে দেব না। দিদির ভাইরা, ৫টাকায় আলু কিনে, ৪৫ টাকায় বিক্রি করছে।”
এই বলে বক্তব্য শেষ করে বেরিয়ে জান তিনি। তার বক্তব্যের সাথে সাথে শেষ হয় বামঘাটার চায়ে পে চর্চা।




%d bloggers like this: