ছুটির ঘন্টা বাজলেও বাড়ি যেতে পারেননি মহারাজ, আজও থাকবেন হসপিটালে

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজই বাড়ি ফেরার কথা ছিল মহারাজের। উডল্যান্ডস হাসপাতাল চত্ত্বরে মহারাজের জন্যে অধীর অপেক্ষায় তাঁর ভক্তেরা। কিন্তু মহারাজ সিদ্ধান্ত নিলেন আজ বাড়ি ফিরবেন না, আগামীকাল ফিরবেন। হাসপাতাল সূত্রে খবর, মহারাজের কথা মেনেই আরও একদিন বেশি তাঁকে পর্যবেক্ষণে রাখা হবে।
গত চারদিন ধরে শরীরের উপর প্রচুর ধকল গিয়েছে তারপরে তাঁর একটু বিশ্রামের প্রয়োজন।

একটা অস্ত্রোপচার এবং গুচ্ছের ওষুধ ইনজেকশনের ফলে শরীরের ওপর একটু বেশিই প্রভাব পড়েছে। একটু বিশ্রাম চাইছেন সৌরভ। গতকাল সারারাত ভালো ঘুমোলেও আরো বিশ্রাম চাইছেন সৌরভ গঙ্গ্যোপাধ্যায়। হাসপাতাল সূত্রে খবর, আজ সারা দিন কোনও ভিজিটরকে কে যেতে দেওয়া হবে না সৌরভের ঘরে।এছাড়াও খবর মহারাজের থাইরয়েড, কোলেস্টেরলও সামান্য বেশি। সেসবই পর্যবেক্ষণ করা হবে আজ।

তবে মহারাজ এখন সুস্থই আছেন। রাতে ভাল ঘুম হয়েছে। ঘরোয়া খাওয়াদাওয়াও করছেন। এদিন সকালে তাঁর ডিসচার্জ সার্টিফিকেটও তৈরি হয়ে যায়। বুধবার তাই ছুটি দেওয়ার কথা থাকলেও, সৌরভের ইচ্ছেকে সম্মান দিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বৃহস্পতিবার ডিসচার্জ করার কথা জানিয়েছে।

এদিন সকাল ১১.৩০ নাগাদ সৌরভের চিকিৎসার জন্য তৈরি মেডিকেল বোর্ডের ডাক্তাররা আলোচনা সারেন। তাঁদের সঙ্গে জুম কলে ছিলেন অন্যান্য কার্ডিওলজিস্টরাও। তারপরেই জানানো হয়, সৌরভকে আগামীকাল বৃহস্পতিবার ডিসচার্জ করা হবে।
এদিন মহারাজকে একদিন চোখের দেখা দেখতে দূরদূরান্ত খেকে এসেছিলেন ভক্তরা। কেউ কেউ চলে এসেছেন রাতের পদাতিক এক্সপ্রেস ধরেও। মহারাজের সিদ্ধান্ত বদলে কিছুটা হতাশ তাঁরা, যদিও সর্বান্তকরনে তাঁরা চান মহারাজ ভালো হয়ে ফিরুন।

এদিকে তিন সপ্তাহ পরে তাঁর অন্য দুটি ধমনীতে স্টেন্ট বসানো হবে বলে জানাচ্ছেন চিকিৎসকরা। আপাতত সৌরভকে ঘরোয়া ডায়েটেই থাকতে হবে। খাদ্যতালিকা থেকে বাদ পড়ছে দুধজাতীয় খাবার। কোলেস্টেরল বাড়তে পারে এমন কিছুই খেতে পারবেন না মহারাজ। রেড মিট, বিরিয়নি আপাতত বন্ধ থাকবে। যদিও পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ক্রমে তিনি সবই খেতে পারবেন।

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থা খতিয়ে দেখার পর বিশিষ্ট কার্ডিওলজিস্ট দেবী শেঠি জানিয়েছিলেন, ‘সৌরভের কোনো বড়সড় সমস্যা নেই। ওঁর যে সমস্যা রয়েছে সেটা অধিকাংশ ভারতীয়র কখনো না কখনো হয়ে থাকে। ওঁর করোনারি আর্টারিতে ব্লক রয়েছে। প্রশ্ন হল, ওঁর কি হার্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে? একদম নয়। ব্লকেজের কারণে কিছুটা অস্বস্তি হয়েছিল। ঠিক সময়ে হাসপাতালে চলে আসায় একদম ঠিকঠাক চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।”

সেই সঙ্গে তিনি আরো বলেছিলেন, ‘সৌরভের হার্ট এখনও ২০ বছর বয়সের মতই শক্তিশালী। সবাইকে জানাতে চাই, ওঁর এমন কোনো হার্টের সমস্যা হয়নি যাতে হার্ট ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। ওঁর হার্ট সত্যিই খুব পোক্ত।’




%d bloggers like this: