প্রজাতন্ত্র দিবসে কৃষকদের ট্রাক্টর র‍্যালি নিয়ে ‘ভুল’ খবর ছড়ানোয় রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ দায়ের

0 2

নিজস্ব প্রতিবেদন: কেন্দ্রের তিন কৃষি আইন কিছুতেই মেনে নিতে রাজি নন কৃষক। তিন আইনের বিরুদ্ধে দু’মাস ধরে আন্দোলন চলছে দিল্লিতে। এরমধ্যে প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন রণক্ষেত্রের আকার নেয় গোটা দিল্লি। পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তি বেঁধে যায় কৃষকের। দেশের বহু প্রান্ত থেকে আসা কৃষকরা পুলিশে ব্যারিগেড ভেঙে আন্দোলন মিছিলে যোগ দেন। এবং গোটা ঘটনার দায় অভিনেতা দীপ সিধুর উপর তোলে কৃষক নেতা। তাঁর দাবি, দীপই উস্কেছে কৃষকদের। এরপর এই ঘটনা নিয়ে নানান ভুল খবর ছড়াতে শুরু করে সোশ্যাল মিডিয়ায়। প্রজাতন্ত্র দিবসে কৃষকদের ট্রাক্টর র‍্যালি নিয়ে কিছু ভুল খবর প্রচার এবং বৈষম্য ছড়ানোর অভিযোগে এবার কংগ্রেস সাংসদ শশী তারুর সহ ৬ সাংবাদিককে কাঠগড়ায় তোলা হল। এই অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশে পুলিশের কাছে। ভারতীয় দন্ডবিধির রাষ্ট্রদ্রোহিতা, ফৌজদারি ষড়যন্ত্র এবং হিংসা ছড়ানোর বিভিন্ন ধারা অনুযায়ী এই অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

প্রজাতন্ত্র দিবসে এই ঘটনার পর দিল্লিতে ট্রাক্টর র‌্যালিতে অরাজকতার সমস্ত দায় অভিনেতা দীপের উপর চাপাতে শুরু করেছেন কৃষক নেতারা। এমনকি সেদিন লালকেল্লায় কৃষকরা শিখদের ধর্মীয় পতাকা তোলেন, তার জন্যও তাঁকেই দায়ী করা হচ্ছে। আর তারপরই বৃহস্পতিবার সেই অভিযোগের তীব্র বিরোধিতা করেন অভিনেতা তথা সমাজকর্মী দীপ সিধু। তাঁর কথায়, “এভাবে তাঁকে ‘নন্দঘোষ’ না বানিয়ে অরাজকতার দায় নিক কৃষক নেতারাই”। ৩৬ বছর বয়সি এই অভিনেতা স্পষ্ট বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচার শুরু হয়েছে। পরিকল্পিতভাবে তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ আনছে নানা মহল। গত মঙ্গলবার লালকেল্লায় শিখদের ধর্মীয় পতাকা ‘নিশান সাহিব’ উড়িয়ে দেন তাঁরা। সেখানে বিক্ষোভরত কৃষকদের মাঝে দেখা গিয়েছিল গুরুদাসপুরের বিজেপি সাংসদ সানি দেওলের ঘনিষ্ঠ দীপকেও। এরপরই বুধবার তাঁকে ‘বিশ্বাসঘাতক’ বলেন কৃষক নেতারা। এমনকী তাঁকে পাঞ্জাবে বয়কটেরও ডাক দেওয়া হয় বলে জানা গিয়েছে। অনেকে তাঁকে সরকারের ‘এজেন্ট’ও বলেছে। যদিও দীপ বলেন, বিক্ষোভকারীরা নিজেদের ইচ্ছাতেই লালকেল্লা গিয়েছিলেন। তবে তিনি কৃষক নেতাদের দেখানো পথ মানেননি। পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, “লালকেল্লায় কোনও আরএসএস বা বিজেপি কর্মী কি নিশান সাহিব বা কৃষকদের পতাকা ওড়াবে? এটা তো একবার ভেবে দেখুন।”

কৃষকদের এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছে এডিটর গিল্ড অব ইন্ডিয়া। ঘটনাস্থলে অনেক সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন। তাঁরা নিজেদের চোখে যা দেখেছেন, পুলিশের থেকে যা জেনেছেন তাই লিখেছেন। এটা সাংবাদিকতার ধরন। তবে কৃষকরা ইচ্ছাকৃতভাবে সাংবাদিকদের টার্গেট করা হয়েছে। কারণ সাংবাদিকরা আন্দোলনকারী এক কৃষকের মৃত্যু নিয়ে খবর করেছে। সেই খবর নিজেদের ব্যক্তিগত সোশাল মিডিয়া হ্যান্ডলেও প্রকাশ করেছেন। উক্ত ঘটনার নিন্দা করেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। মুখ্যমন্ত্রী লিখেছেন, “বর্ষীয়ান সাংবাদিক রাজদীপ সরদেশাইয়ের সঙ্গে যা হয়েছে তাতে আমি অবাক। এটা আরও বেশি অবাক করে যে বেশিরভাগ সংবাদমাধ্যম এই বিষয়ে চুপ করে আছে। আমাদের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় অবশ্যই সোচ্চার হওয়া উচিত। সংবাদমাধ্যম গণতন্ত্রের স্তম্ভ”। সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে নয়ডা সহ মধ্যপ্রদেশের ভোপাল, হোসংবাদ, মুল্টাই, বেটুলে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। দিল্লির এক বাসিন্দা শশী তারুর এবং ৬ সাংবাদিকের ডিজিটাল ব্রডকাস্ট এবং সোশাল মিডিয়া পোস্টের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। তাঁর অভিযোগ সংশ্লিষ্টরা বলেছেন দিল্লি পুলিশের গুলিতে কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। যা একেবারে মিথ্যে।

উল্লেখ্য, কেন্দ্রের তিন আইন প্রত্যাহারের দাবিতে ক্রমশ ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছিল কৃষকরা। প্রজাতন্ত্র দিবসে তাই রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় দিল্লি। প্রজাতন্ত্র দিবসের সকালে রাজধানীর রাস্তা দিয়ে ঝড়ের বেগে ছোটে একের পর এক ট্র্যাক্টর। মিছিলের চাপে ভেঙে পরে পুলিশের ব্যারিকেড। কোথাও পুলিশকে লক্ষ্য করে ছোড়া হয় পাথর, আবার কোথাও লাঠিবৃষ্টি করে পুলিশ। সকাল আটটা নাগাদই সিংঘু, টিকরি, গাজিপুরের দিক থেকে কৃষকদের ট্র্যাক্টর র‍্যালি দিল্লির দিকে এগোতে শুরু করে। শুধু ট্র্যাক্টরই নয়, আন্দোলনকারীদের মধ্যে অনেকে ছিলেন ঘোড়ার পিঠে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তের কৃষকরা এই মিছিলে যোগ দেন। গোটা লালকেল্লা দখলে চলে যায়। স্বাধীনতা দিবসে লালকেল্লার যে জায়গায় প্রধানমন্ত্রী জাতীয় পতাকা তোলেন, সেই খুঁটিতে চড়ে কৃষক সংগঠনের ঝান্ডা লাগিয়ে দেন। বৃহস্পতিবার ফেসবুকে এই নিয়ে একাধিক ভিডিও পোস্ট করেন অভিনেতা দীপ। তাঁর দাবি, সেদিন লালকেল্লায় তোরণ ভাঙার পরে তিনি সেখানে গিয়েছিলেন। সেখানে ছিলেন কয়েক হাজার বিক্ষোভকারী, কিন্তু সেখানে কোনও কৃষক নেতার দেখা মেলেনি। অনেকেরই হাতে তিনি ‘নিশান সাহিব’, কৃষকদের নিজস্ব পতাকা এবং জাতীয় পতাকা দেখেছিলেন তিনি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: