দেশে করোনার দাপট কমলেও ফের নাইট কার্ফু জারি হল গুজরাটে

নিজস্ব প্রতিবেদন: দেশে করোনার দাপট অনেকটাই কমেছে। সাথে দৈনিক আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যাও অনেক কমের দিকে। পাশাপাশি দেশে করোনা প্রতিরোধক ভ্যাকসিন বন্টন শুরু হয়ে গিয়েছে। কিন্তু দেশের অন্যান্য রাজ্যে করোনার দাপট আগের থেকে কমলেও কোনও ঝুঁকি নিতে চাইছে না গুজরাট সরকার। গুজরাটের কিছু কিছু শহরে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। আর সেটাকে অবহেলার চোখে দেখতে রাজি নন সেখানের সরকার। তাই রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কমানোর লক্ষ্যেই চলতি মাস পর্যন্ত সে রাজ্যের চার শহরে নাইট কার্ফু জারি করল সেখানে সরকার। এই শহরগুলোর মধ্যে রয়েছে আমেদাবাদ, সুরাট, ভাদোদরা ও রাজকোট, এখানে নাইট কার্ফু জারি থাকবে বলে জানানো হয়েছে। উল্লেখ্য, এর আগেও এই সবগুলোতে চলছিল নাইট কার্ফু, আগের নির্দেশ অনুযায়ী ওই চার শহরে নাইট কার্ফুর সময়সীমা আজই শেষ হওয়ার কথা ছিল।

কিন্তু ফের গুজরাটের স্বরাষ্ট্র দফতরের অতিরিক্ত মুখ্যসচিব পঙ্কজ কুমার জানিয়েছেন, ১৬ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মধ্যরাত থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কার্ফু জারি থাকবে। এরআগের কার্ফুতে, রাত ১১টা থেকে পরের দিন সকাল ৬টা পর্যন্ত নাইট কার্ফুর সময়সীমা ছিল। রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কমানোর লক্ষ্যেই এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে সরকার। সূত্রের খবর, নাইট কার্ফুর ফলে আমেদাবাদ ও ভাদোদরায় করোনা সংক্রমণের হার কমেছে। যদিও এরমধ্যেও চিন্তায় রেখেছে রাজকোট ও সুরাট। পাশাপাশি গতকাল জানা গিয়েছে, করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপানি। রবিবার ভাদোদরা জেলার নিজামপুরে একটি জনসভায় প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তিনি। সেখানে বক্তব্য রাখার সময় আচমকা পড়ে গিয়ে জ্ঞান হারান। আচমকা এমন ঘটনায় সকলে হতভম্ব হয়ে গেলেও শীঘ্রই উপস্থিত BJP নেতা এবং নিরাপত্তারক্ষীরা অবস্থার সামাল দেন।

বিজেপির সভাতে মঞ্চ থেকে বক্তৃতা রাখার সময় হঠাৎই সংজ্ঞা হারালেন বিজেপি নেতা তথা গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রুপানি। আচমকা এমন ঘটনায় সকলে হতভম্ভ হয়ে গেলেও শীঘ্রই উপস্থিত BJP নেতা এবং নিরাপত্তারক্ষীরা অবস্থার সামাল দেন। সাথে সাথে আমেদাবাদের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়, ২৪ ঘণ্টা মুখ্যমন্ত্রীকে পর্যবেক্ষণে রাখার কথা জানান চিকিৎসকরা। করা হয় করোনা টেস্ট। এরই মধ্যে বিজয় রুপানির করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট আসে। জানা যায়, তাঁর করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে।আপাতত মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপানিকে ২৪ ঘণ্টার জন্য পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

চিকিৎসক আর কে প্যাটেল বলেন, “মারাত্মক ক্লান্তি ও ডিহাইড্রেশনের কারণে রবিবার মঞ্চে জ্ঞান হারিয়েছিলেন বিজয় রূপানি। তাঁর সমস্ত রকম শারীরিক পরীক্ষা ও চেক-আপ করা হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর সিটি স্ক্যান ও ECG রিপোর্ট সন্তোষজনক।” বিজয় রূপানির সংস্পর্শে আসা সকলকে সাবধান হওয়ার কথা বলেছে। ও সকল মানুষদেরও করোনা টেস্ট করিয়ে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, আগামী ২১ ফেব্রুয়ারি গুজরাটে পুরসভা ভোট। শেষ পর্যায়ের প্রচারে ঝড় তুলছে শাসক-বিরোধী সকলেই। আর ঠিক এইসময় মুখ্যমন্ত্রীর করোনায় আক্রান্ত হয়ে পড়ায় কিছুটা হলেও ধাক্কা খেল গেরুয়া শিবির, এমনটাই মনে করছেন অনেকে।

অন্যদিকে করলে ২৪ ঘণ্টায় সাড়ে ৪ হাজারের বেশির আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গেল। দৈনিক করোনা আক্রান্তের নিরিখে মহারাষ্ট্রও একই লেবেলে প্রায় রয়েছে।মহারাষ্ট্রে নতুন করে সংক্রমিত হয়েছে ৪ হাজারেরও বেশি। গোটা দেশ জুড়ে এখন করোনাতে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে ১১ হাজারেরও বেশি। পাশাপাশি গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থতার হার কমলেও বেড়েছে সংক্রমণের হার। তবে স্বস্তির বিষয়, দেশে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা কমেছে। সোমবার সকালে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের প্রকাশিত বুলেটিন অনুয়ায়ী, নতুন করে করোনাতে আক্রান্ত হয়েছেন ৪ হাজার ৬১২ জন কেরলে। আর এর পরেই রয়েছে মহারাষ্ট্র।




%d bloggers like this: