সংকটে কথাসাহিত্যিক বিভূতিভূষণের বসতবাড়ি

নিজস্ব প্রতিবেদক: পুরো বাড়ি জুড়ে তাঁর স্মৃতি ছড়ানো। কোথাও রাখা পাণ্ডুলিপি, কোথাও ব্যবহৃত আসবাব। কিন্তু আজ তাঁর বাড়ি রক্ষার জন্যেই জীবন সংকটে। শপিং মল নির্মাণের জেরে ভাঙতে বসেছে সাহিত্যিক বিভূতিভূষণের বাড়ি। এমনটাই জানালেন বিভূতিভূষণের পুত্রবধু। এর পেছনে এক শপিং মল নির্মাণ প্রকল্প দায়ী।

কথাসাহিত্যিক বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের পুত্র সুসাহিত্যিক তারাদাস বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী শ্রীমতি মিত্রা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন ফেসবুকে এক পোস্টে লেখেন যে, ‘আমি কথাসাহিত্যিক বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের পুত্রবধূ। ব্যারাকপুরে সুকান্তসদনের পিছনে আমাদের বাড়ি আরণ্যক। প্রায় দু’বছর আগে আমাদের বাড়ির গা ঘেঁষে একটি বিশাল শপিং মলের কাজ চলছে। শপিং মলের কাজ শুরু হওয়ার প্রথম দিন থেকেই আমাদের বাড়ির পিছনের পাঁচিল ভেঙে দেওয়া হয়। বিভিন্ন রকমের উৎপাত শুরু হয়। পৌরসভার সেইসময়ের চেয়ারম্যান উত্তম দাসকে বিষয়টি জানানোর পর, উনি চিঠি দিয়ে জানিয়েছিলেন যে বাড়ি ওরা মেরামত করে দেবেন। কিন্তু তখনকার মতো দু-তিনটে খুঁটি লাগিয়েছিলেন। এখনও তার কোনও সমাধান পাইনি।’

মিত্রাদেবীকে প্রশ্ন করা হলে, তিনি প্রশাসনকে কেন জানাচ্ছেন না? এর উত্তরে তিনি জানান, ‘বহু জায়গায় এই বিষয়ে তদ্বির করেছি। কিন্তু কোনও রহস্যজনক কারণে কিছুই করতে পারছি না।’ মিত্রাদেবী বলেন, ‘তবে কি ভদ্রতার দিন ফুরিয়ে গেলো?’
তবে শুধুমাত্র মিত্রাদেবী নন, প্রবল সংকটের সম্মুখীন মিত্রাদেবীর প্রতিবেশীরাও। এদিন স্থানীয় এক মহিলা জানান, তাঁদের বাড়ির বিভিন্ন জায়গায় ফাটল দেখা দিয়েছে। চেয়ারম্যানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন মল তৈরি হচ্ছে, ব্যারাকপুরবাসীর স্বার্থে এই কাজ কোনওভাবেই বন্ধ করা যাবে না।

প্রসঙ্গত, ব্যারাকপুর অঞ্চলজুড়ে বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবারের নাম সবার মুখে মুখে ফেরে।সেখানে তাদের প্রতি সম্ভ্রমও অটুট। ব্যারাকপুরের প্রাক্তন পুরপ্রশাসক বলেছেন, তিনি সর্বতোভাবে সাহায্য করবেন বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবারকে। কিন্তু অশান্তিতে নাজেহাল পরিবারকে কি সত্যিই তাঁরা পারবে সাহায্য করতে? অসুস্থ মিত্রাদেবীর চোখে গভীর সংশয়।




%d bloggers like this: