কোভ্যাক্সিন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াচ্ছে ,বলছে ব্রিটেন

নিজস্ব প্রতিবেদন: দেশে করোনা প্রতিরোধক কো-ভ্যাকসিন ইতিমধ্যে বিতরণ শুরু হয়েগিয়েছে। প্রথম এই ভ্যাকসিন তাদের দেওয়া হয়েছে, যাঁরা করোনা আবহে প্রথম সারিতে থেকে কাজ করে চলেছেন। একদিকে ভারতে ভ্যাকসিন শুরুকে কেন্দ্র করে স্বস্তির আবহ তৈরী হয়েছে, অন্যদিকে ভারতে দৈনিক করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ল।

পাশাপাশি বেড়েছে মৃতের সংখ্যাও। যদিও এই নিয়ে পরপর তিনদিন দৈনিক আক্রান্তর সংখ্যা ১৫ হাজারের নিচে। সূত্রের খবর, গত ২৪ ঘন্টায় আক্রান্তের সংখ্যা ১৪,৮৪৯। গতকাল আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১৪ হাজার ২৫৬। সাথে একদিনের মৃতের সংখ্যা ১৫৫। গতকাল যে সংখ্যাটা ছিল ১৫২।

জানা গিয়েছে, শেষ ২৪ ঘন্টায় হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে ছাড়া পেয়েছেন ১৫,৯৪৮ জন। করোনার বিরুদ্ধে এই লড়াইয়ে ভারত যে ভাবে পাশে দাঁড়িয়েছে, তার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে টুইট করলেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)-এর ডিরেক্টর জেনারেল তেদ্রস আধানম ঘেব্রেইয়েসুস।

ভারতে ভ্যাকসিন আসার পরই ব্রাজিল, মরক্কো-সহ দক্ষিণ এশিয়ার একাধিক দেশে সেই করোনার ভ্যাকসিন পাঠিয়েছে ভারত। এ নিয়ে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট আগেই ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তারপরই টুইট হু-প্রধানের।

ট্যুইটে ঘ্রেবেইয়েসুস লিখেছেন, “কোভিড ১৯-এর বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক লড়াইয়ে ক্রমাগত পাশে থাকার জন্য ভারত এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ধন্যবাদ। আমরা একসঙ্গে কাজ করলে, জ্ঞান বণ্টন করে নিলে তবেই ভাইরাসকে আটকানো সম্ভব। জীবন এবং জীবিকা বাঁচানো সম্ভব।” আইসিএমআর-এর তথ্য অনুযায়ী, ২৩ জানুয়ারি পর্যন্ত করোনাভাইরাসের জন্য নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে মোট ১৯ কোটি ১৭ লক্ষ ৬৬ হাজার মানুষের।

এরমধ্যে গতকাল পরীক্ষা করা ৭.৮১ লক্ষ নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যদিও দেশে করোনাভাইরাস থেকে সেরে ওঠার হার ৯০ শতাংশের বেশি। ভ্যাকসিন দেওয়ার কারণে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট বলসোনারো টুইট করে বলেন, “নমস্কার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

কোভিডের বিরুদ্ধে মিলিত লড়াইয়ে ব্রাজিল ভারতের সঙ্গী হতে পেরে গর্বিত। ভ্যাকসিন পাঠিয়ে আমাদের সহযোগিতা করার জন্য ধন্যবাদ!” শুক্রবার ভারত ব্রাজিলকে ২০ লক্ষ ডোজ কোভিশিল্ড পাঠিয়েছে। বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান ও মালদ্বীপ মোট ৩২ লক্ষ ডোজ ভ্যাকসিন পেয়েছে। এই ভ্যাকসিন মরিশাস, মায়ানমার এবং সেশেলসেও পাঠানো হবে। এরপর ভারত ভ্যাকসিন পাঠাবে শ্রীলঙ্কা ও আফগানিস্তানে ।

অন্যদিকে, মোদী গতকাল বলেন এই ভ্যাকসিন কাজে আসবে। ভ্যাকসিন নিয়ে কারোর ভয় পাওয়ার কিছু নেই। মানুষের মনে যদিও এখন ভয় যায়নি। এরমধ্যে ব্রিটেনের মেডিক্যাল জার্নাল ল্যানসেট জানায়, কোভ্যাক্সিন দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে সক্ষম। প্রথম পর্যায়ের ট্রায়ালের উপর এই রিপোর্ট তারা প্রকাশ করেছে।

সেই রিপোর্টে বলা হয়েছে, “দেশে ৩৭৫ জন অংশগ্রহণকারীর উপর সমীক্ষার ফল বলছে টিকা নেওয়ার ১৪ দিনের মধ্যেই তা সহনীয় হয়েছে এবং দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে”। এবং যাঁরা টিকা নিয়েছেন, তাঁদের দেহে কোনও বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি বলে জানা গিয়েছে। উল্লেখ্য, সক্রিয় আক্রান্তের সংখ্যার ক্ষেত্রে বিশ্বে ভারত রয়েছে ১৩ তম স্থানে। মোট করোনা সংক্রমণের নিরিখে ভারত বিশ্বে দ্বিতীয় স্থানে। সুস্থতার ক্ষেত্রে আমেরিকার পরেই রয়েছে ভারত। ভারত মৃত্যুর সংখ্যার নিরিখে আমেরিকা ও ব্রাজিলের পর অর্থাৎ তৃতীয় স্থানে।




%d bloggers like this: