নাড্ডার সফরের আগে বিজেপি প্রার্থীর মুখে পিকে’র প্রশংসা

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিধানসভা নির্বাচনের আগে থেকেই শুরু হয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেসে দলবদলের হিড়িক। তবে এবার ঘটল ঠিক একেবারে উলটোপুরাণ। এদিন জেপি নড্ডার জেলা সফরের আগে ফেসবুকে বিস্ফোরক পোস্ট করতে দেখা গেল গত লোকসভা নির্বাচনে বর্ধমান পূর্ব কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী পরেশচন্দ্র দাসের। যেখানে সবাই তৃণমূলের পিকে’‌র সমালোচনা করে দলত্যাগ করছেন সেখানে প্রশান্ত কিশোরের প্রশংসা করলেন পরেশচন্দ্র দাস। আর এই পোস্টের পর পরেশচন্দ্র দাসকে নিয়েই তৈরি হয়েছে জল্পনা।

তিনি তার ফেসবুকে লিখেছেন, একুশের নির্বাচনে, চারটি দল বিজেপি’‌র সমস্তরকম সমীকরণকে বদলে দিতে পারে বলে আমার মনে হয়। সাবধানে, কমপক্ষে ৯টি বড় জেলাকে চিহ্নিত করে এগোনো ছাড়া এখানে অন্য কোনও পথ খোলা নেই। অবিলম্বে অপদার্থ জেলা সভাপতিদের অন্য পদে সরিয়ে, যোগ্য ব্যক্তিদের জেলায় আনা ছাড়া কি বিকল্প আছে আর আমাদের? অধিকাংশ বুথের সংগঠন কেমন? সেটা কি আমাদের মনে আছে? ঈশ্বর আমাদের সুমতি দিন এই প্রার্থনাই করি, কারণ আমরা জানি প্রিভেনশন ইজ বেটার দ্যান কিওর। শুভেন্দু অধিকারী যতই প্রশান্ত কিশোরকে ফিকে বলুন না কেন, পি কে কিন্তু লিটল শর্ট অফ এ জিনিয়াস।’‌

আগামী শনিবার জেপি নড্ডার বর্ধমান সফর। তার আগেই গত লোকসভা নির্বাচনে বর্ধমান পূর্ব কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী পরেশচন্দ্র দাসের এইরকম বিস্ফোরক পোস্ট দলীয় নেতৃত্বের বিরুদ্ধে লুকিয়ে থাকা ক্ষোভের প্রমাণ বলেই মনে করা হচ্ছে। তিনিই আবার তৃণমূলের ভোটকৌশলীর প্রশংসা করেছেন। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, এখানেও কি তবে দলভাঙনের প্রভাব পড়ছে।
কেউ কেউ বলছেন, বিজেপি’‌র অন্দরে যে ফাটল ধরতে শুরু করেছে তা পরেশচন্দ্র দাসের পোস্ট দেখেই স্পষ্ট। আবার কেউ বলছেন, পরেশচন্দ্র দাস বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপি ছেড়ে ঘাসফুল শিবিরে নাম লেখাতে চলেছেন তিনি। যদিও এই ব্যাপারে এখনও কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি পরেশচন্দ্র দাসের পক্ষ থেকে।




%d bloggers like this: