প্রায় ২০০ জনের বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান

নিজস্ব সংবাদদাতা,পশ্চিম মেদিনীপুর:- বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিলেন বিজেপির কেশিয়াড়ির বুথ সভাপতি , গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য সহ ২০০ জন।শুক্রবার বিকেলে মেদিনীপুরে তৃণমূল কার্যালয়ে তাঁদের হাতে তৃণমূলের পতাকা তুলে দেন তৃণমূলের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি।২০১৮ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনে কেশিয়াড়ি পঞ্চায়েত সমিতির ২৫ টি আসনের মধ্যে ২৩ টি দখল করে বিজেপি । ১০ টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে ৬ টি দখল করে বিজেপি। এরপরও বিজেপি পঞ্চায়েত সমিতির বোর্ড গঠন করতে পারেনি। দখলে থাকা ৬ টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে ২ টি হাতছাড়া হয়েছে। এছাড়াও বেশ কয়েকটি গ্রাম পঞ্চায়েতের নির্বাচিত নির্বাচিত বিজেপি সদস্য ইতিমধ্যেই যোগ দিয়েছেন তৃণমূলে। এদিন কেশিয়াড়ীর ২ নম্বর খাজরা গ্রাম পঞ্চায়েতের বিজেপির নির্বাচিত সদস্য বিশ্বজিৎ সিং ও বুথ সভাপতি দিলীপ দাসের নেতৃত্বে ওই এলাকার বিজেপি কর্মীরা তৃণমূলে যোগদান করেছেন। ২০১৯ এর লোকসভা ভোটের আগে থেকেই কেশিয়াড়িকে পাখির চোখ করেছে তৃণমূল। দুবার কেশিয়াড়িতে সভা করে মুখ্যমন্ত্রী বার্তা দিয়েছেন কেশিয়াড়ির মানুষের সব ধরণের কাজ সরাসরি জেলা পরিষদ ও ব্লক প্রশাসনের মাধ্যমে করে দেওয়া হবে। বিজেপি পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েতের ওপর তাঁদের আর নির্ভর করতে হবে না। কথা দিয়ে কথা রেখেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর ঘোষণার এক মাসের মধ্যে একের পর এক উন্নয়ন প্রকল্প নেওয়া হয়েছে এবং এক বছরের মধ্যে তা বাস্তবায়ন হয়েছে।
শুক্রবার বিকেলে মেদিনীপুরের জেলা তৃণমূল কার্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন জেলা সভাপতি অজিত মাইতি , কেশিয়াড়ির তৃণমূল বিধায়ক পরেশ মুর্মু ।অজিতবাবু ও পরেশবাবু দুজনেই জানান , দুএকদিনের মধ্যেই এই কেশিয়াড়ী থেকেই আরও একঝাঁক বিজেপি নেতাকর্মীরা তৃনমূলে যোগ দেবেন। তাঁদের দাবি যে দিলীপ ঘোষ কেশিয়াড়ি নিয়ে বড়বড় কথা বলতেন সেখানে বিজেপির ঝান্ডা ধরার জন্য কর্মী পাওয়া যাবে না।
এটা ওনার অহমিকা ও দম্ভের ফল । উনি খড়গপুর বিধানসভা উপনির্বাচনে ফল হাতেনাতে পেয়েছেন এবার কেশিয়াড়ির ফলটাও পাবেন। ।




%d bloggers like this: