পাচারীকৃত নারীদের উদ্ধার করে সমাজের মূল স্রোতে ফিরিয়ে পদ্মশ্রীতে ভূষিত অনুরাধা


ভাস্কর চক্রবর্তী, নিজস্ব প্রতিনিধিঃ ১২০০০ জনেরও বেশি মেয়েকে পাচার থেকে উদ্ধার করার জন্য পদ্মশ্রী পুরস্কার পেলেন অনুরাধা কৈরালা। তিনি ৪৫ হাজারের বেশি নারীকে ভারত-নেপাল সীমান্তে পাচার হয়ে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা করেন। তিনি পশ্চিমবঙ্গে জন্মগ্রহণ করলেও জীবনের বেশিরভাগ সময় নেপালে কাটিয়েছেন এবং কাঠমান্ডুতে একজন শিক্ষক হিসাবে কাজ করতেন। ১৯৯৩ সালে তিনি মাইতি নেপাল প্রতিষ্ঠা করেন যা, সেই সব মহিলাদের জন্য আশ্রয়স্থল যারা পাচার হয়ে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা পেতেন বা এমন অনেকে আছেন পাচার হয়ে এসেছেন। বস্তুগত সহায়তা এবং মনস্তাত্ত্বিক পরামর্শ গ্রহণের জন্য এটি তৈরি।

তার সংগঠনে তিন ধরণের কার্যকলাপ হয় যার, ১১ টি ট্রানজিট হোম, দুটি আবাস এবং একটি স্কুল। এছাড়াও সংস্থা সচেতনতা এবং কাউন্সেলিং প্রোগ্রামের পাশাপাশি পুনর্বাসন কর্মসূচি পরিচালনা করে। এটি এমন এক সংগঠন যা মানুষকে এইচআইভির জন্য অ্যান্টি-রেট্রো ভাইরাল চিকিত্সা দেয় এবং অন্যদের মধ্যে হোটেল পরিচালনা, সেলাই এবং কম্পিউটারের প্রশিক্ষণ কোর্স সরবরাহ করে।

২০১০ সালে কৌরালাকে সিএনএন হিরো ঘোষণা করা হয় এবং ২০১৪ সালে তাকে মাদার তেরেসা অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়।

একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, প্রতি বছর ১২০০০ নেপালি মেয়েদের পাচার করা হয়। ২০১৬ সালে মাইতি নেপাল ভারত-নেপাল সীমান্তে ৭২ জন মেয়েকে পাচারকারীদের কবল থেকে মুক্ত করতে সক্ষম হয়।




%d bloggers like this: