কেমন কাটছে কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলার ষষ্ঠ দিন?

0 1


সুমন হাজরা, কলকাতা,এসপ্লাস নিউজ:
বর্তমানে ভীষনভাবে শোনা যায় বাংলা ও বাঙালির “চৌদ্দ পার্বন” হল বইমেলা। জানুয়ারির ঠিক শেষে দেবী সরস্বতীর আরাধনার সময়কালেই এর শুভ সূচনা হয়।এই মেলা এবছরে ৪৪ বছরে পা দিয়েছে। প্রথম দুদিন প্রচন্ড বৃষ্টিতে প্রকাশকরা নাজেহাল হলেও সব বাধা বিঘ্ন কাটিয়ে নিজেদের ছন্দে ফিরেছেন সকলেই।সেই সঙ্গে বইপ্রেমীদের নিয়ে রমরমিয়ে চলছে বইয়ের কেনাকাটা। প্রায় সব স্টলের সামনে রীতিমত ভীড় জমছে প্রতিদিন।

প্রতিদিনই প্রকাশনীগুলিতে উপস্থিত থাকছেন নামীদামী লেখক লেখিকাদের সঙ্গে নবীন লেখক লেখিকারা ও। নিজস্বি, অটোগ্রাফ এর পাশাপাশি বাংলা সাহিত্যের উন্নতির লক্ষ্যে তথা লেখার মান বাড়াতে প্রতিষ্ঠিত দের কাছ থেকে মতামত নিচ্ছেন নবীন কবি লেখকলেখিকেরা।তথ্যসূত্র অনুযায়ী এবারে মেলাতে প্রায় ১,৮০০টি নতুন বাংলা বই বিভিন্ন প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হয়েছে। রয়েছে প্রায় ৬০০টি বইয়ের স্টল।

এছাড়া ও লিটিল ম্যাগাজিনের জন্য আলাদা টেবিল।বাংলা বইয়ের পাশাপাশি ই়ংরেজী, হিন্দি সাহিত্যের প্রতি ও পাঠকেরা কমবেশি আগ্রহ প্রকাশ করছেন।তবে বাংলা বইয়েরই চাহিদা বেশি সর্বকালের মতো। প্রকাশক মহলের দাবী , লিটিল ম্যাগাজিন এর কাটতি এই বছর খুব বেশি ।

ইতিমধ্যেই বাঙালি পাঠকদের মধ্যে সাড়া ফেলেছে দেব সাহিত্য কুটির থেকে প্রকাশিত হিমাদ্রী কিশোর দাশগুপ্তের “ এডভেঞ্চার ভয়ঙ্কর“এবং পত্রভারতী থেকে প্রকাশিত “কর্নসুর্বনর কড়ি“
অরণ্যমন প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত “দশচক্র ও এবং ইনকুইজিশন“

এছাড়াও “ট্রাইমলাইন বুকস ইন্ডিয়া” থেকে প্রকাশিত পবিত্র চক্রবর্তীর ছোটদের জন্য “আবার রূপকথা “। নবপত্র,কল্পবিশ্ব,খোয়াই, মহুয়া,আনন্দ, অক্ষর সংলাপ, ধানসিঁড়ি,দেজ, পারুল, খোয়াবনামা,আত্মজা,সিগনেট,দীপ প্রকাশনীতে রয়েছে নতুন নতুন বইয়ের বিশাল ডালি যা বইপোকাদের মুখে হাসি ফোটাতে বাধ্য। এককথায় জমজমাট এবারের কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলা ২০২০।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: