কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতিদের ক্ষোভ প্রকাশ

এসপ্লাস নিউজ,কলকাতাঃ ময়নাতদন্তে আত্নহত্যা কিন্তু থানায় মামলা করা হয়েছে ৩০২ ধারায়, এ নিয়ে পুলিশি তদন্তের ক্ষোভ প্রকাশ করেছে কলকাতা হাইকোর্ট ৷ গত ২০ জুন বীরভূমের ষাট পলসা হাই স্কুলের মিড ডে মিলের অস্থায়ী কর্মী প্রদীপ ভল্লার মৃত্যু নিয়ে করা মামলার আগাম জামিনের শুনানির দিনে পুলিশি তদন্তের ক্ষোভ প্রকাশ করেন বিচারপতিরা ৷ একই সাথে প্রধান শিক্ষক, সহকারী প্রধান শিক্ষকের আগাম জামিনও মঞ্জুর করে দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি জয়মাল্য বাগচি ও বিচারপতি জয় সেনগুপ্তের ডিভিশন বেঞ্চ।
মামলার সূত্র অনুযায়ী , গত ৬ জুন ২০১৯ স্কুলের মিড ডে মিল অস্থায়ী কর্মী সোশ্যাল মিডিয়াতে একটি ভিডিও প্রকাশ করে। সেই ভিডিওতে স্কুলের প্রধান শিক্ষক ,সহকারী প্রধান শিক্ষক এবং প্রাক্তন পরিচালনা কমিটির সম্পাদক এর বিরুদ্ধে মানসিক অত্যাচারের অভিযোগ তোলে প্রদীপ ৷ সেই কারণে সে যে কোন মুহুর্তে কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে পারে এমন হুমকি দেয় প্রদীপ ৷ এরপর গত ২০ জুন ২০১৯ আবাসিকে অবস্থানকারীরা স্কুলের হোস্টেলের ডাইনিং রুমের সিলিং ফ্যানে তার ঝুলন্ত মৃতদেহ দেখতে পেয়ে ময়ূরেশ্বর থানায় খবর দেয় । প্রদীপ ভল্লার স্ত্রী শংকরী ভল্লা তার স্বামীকে খুনের অভিযোগে ময়ূরেশ্বর থানায় মামলা করেন ৷ ঝুলন্ত অবস্থায় প্রদীপের পা ছিলো মাটিতেই । ময়ূরেশ্বর থানার পুলিশ ৩০২ খুনের মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করে। বীরভূমের ষাট পলসা হাই স্কুলের অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক কালি সাধন মন্ডল, সহকারি প্রধান শিক্ষক শুভেন্দু মন্ডল এবং স্কুল পরিচালনা কমিটির প্রাক্তন সম্পাদক অশোক মন্ডল সিউড়ি নিম্নআদালতে আগাম জামিনের আবেদন জানান ।সেই আবেদন খারিজ করে দেয় নিম্ন আদালত। সেই রায় কে চ্যালেঞ্জ করে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন এই তিনজন অভিযুক্ত।
শুক্রবার মামলার শুনানি চলাকালীন তিন অভিযুক্তের পক্ষের আইনজীবী আশীষ কুমার চৌধুরী আদালতে জানান ময়নাতদন্তের রিপোর্টে আত্মহত্যার কথা বলা হয়েছে। পুলিশ উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে খুনের মামলা রুজু করেছে ৷




%d bloggers like this: