করোনা সচেতনতায় বিনামূল্যে মাস্ক এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরন ভগবানপুর যুব সংঘের

নিজস্ব প্রতিনিধি পূর্ব মেদিনীপুর:– বর্তমানে মহামারী করোনা ভাইরাসের আতঙ্কের মধ্যে রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে ব্লক স্বাস্থ্য দপ্তর এর নির্দেশ অনুযায়ী ব্যবহার করতে হবে এছাড়াও ব্যবহার করতে হবে হ্যান্ড স্যানি টাইজার, ইতিমধ্যেই বিভিন্ন সমাজ সেবা সংগঠনের পক্ষ থেকে বিলি করা হচ্ছে মার্কস ও হ্যান্ড স্যানি টাইজার, সোমবার বিনামূল্যে মিলছে হ্যান্ড স্যানি টাইজার! খবর ছড়িয়ে পড়তেই পূর্ব মেদিনীপুরের ভগবানপুরে। করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে হ্যান্ড স্যানি টাইজারের চাহিদা হঠাৎ করে বেড়ে গিয়েছে। কিন্তু মানুষ হন্যে হয়ে ঘুরেও দোকানে স্যানি টাইজার পাচ্ছেন না।

আর এই পরিস্থিতিতে ভগবানপুর যুব সংঘ ঘোষণা করেন, অটো, টোটো, ট্রেকার, পথচলতি-সহ স্থানীয় মানুষদের ‘মাস্ক’ ও ‘স্যানি টাইজার’ দেওয়া হবে। ওই খবর পাওয়ার মুহূর্তের মধ্যেই শয়ে শয়ে মানুষ ভীড় করেন ভগবানপুর বাস স্ট্যান্ডে। আর সেই ভিড় সামাল দিতে স্থানীয় বাজারের মধ্যে রীতি মতো ঘামতে শুরু করেন সংগঠনের কর্মীরা।আয়োজক সংস্থার সম্পাদক সফিউল্লা মল্লিক বলেন, “এই মাস্ক ও স্যানি টাইজার বহু কষ্ট করে আনা হয়েছে। সবাই যাতে পান তাই প্রচেষ্টা করা হচ্ছে।” কিন্তু হঠাৎ করে এত মানুষের জমায়েত স্বাস্থ্য দফতরের নির্দেশিকা উঠেছে শিকেই। সেখানে অধিকাংশ মানুষের মুখে নেই মাস্ক। স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্নও উঠে গিয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যাক্তি বলেন, “এত ভিড় হবে ভাবতেই পারিনি।নূন্যতম সচেতনতা নেই এখানে।” এত ভিড় প্রসঙ্গে সংগঠনের সম্পাদক সফিউল্লা মল্লিক বলেন, “এত ভিড় হয়ে যাবে ভাবা যায়নি। তবে করোনা ভাইরাস প্রতিহত করতে সরকারি স্বাস্থ্য বিধি অনুযায়ী পথচারী, অটো, টোটো, ট্রেকার, বাস যাত্রীদের এবং এলাকার বাসিন্দাদের সচেতন করা হয়েছে।”

ভগবানপুর-১ ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক স্নেহা রায় বলেন, “সবাইকে নিরাপদ দূরত্ব(৬ ফিট্) বজায় রাখতে হবে। যাঁরা বাইরে থেকে এসেছেন তাঁদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে ১৪ দিন বাড়ির মধ্যে থাকতেই হবে। সর্বোপরি মানুষকে আরও সচেতন হতে হবে।”কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন ভগবানপুরের ওসি প্রণব রায়, সংস্থার সভাপতি শেখ মুরাদ আলি, সাংস্কৃতিক সম্পাদক শেখ রজব আলি, বিশিষ্ট সমাজ সেবী জালালুদ্দিন মল্লিক, অভিজিৎ দাস প্রমুখ। তবে ভিড়- লাইন-ধাক্কা ধাক্কির মধ্যেও অবশ্য যুদ্ধ জয়ের হাসি বহু মানুষের মুখে। মাস্ক ও ১০০ মিলিলিটারের স্যানিটাইজার মিলছে যে।




%d bloggers like this: