একমন্ডপেই ৮০১ প্রতিমায় সর্ববৃহৎ দূর্গাপূজো


এসপ্লাস নিউজ,বাংলাদেশ ব্যুরোঃ বাংলাদেশেই আছে মোঘল ঐতিহ্যের গুরুত্বপূর্ন নিদর্শনের শহর বাগেরহাট ৷ এই জনপদেই দীর্ঘ ৮ বছর ধরে মহাধূমধামে দূর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয় হাকিমপুরের শিকদার বাড়িতে ৷ প্রতিমার সংখ্যার দিক থেকে এটি শুধু বাংলাদেশের নয় ,দক্ষিন এশিয়ার সর্ববৃহৎ পূজা মন্ডপ এমনটাই দাবী পূজা আয়োজকদের ৷ আর এই পূজাকে কেন্দ্র করেই ভক্ত দর্শনার্থীর সমাগমে পুরো এলাকা সরগরম থাকে ৷
হাকিমপুর শিকদারবাড়ী ঘুরে দেখা গেছে, সব প্রতিমার কাঠামো নির্মান এবং মাটির প্রলেপের কাজ শেষ ৷ এখন রং আর সাজ সজ্জায় ব্যাস্ত শিল্পিরা ৷ বিগত বছরগুলোতে দেশজুড়ে শিকদারবাড়ীর দূর্গাপূজা ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে ৷ প্রতিবছর প্রতিমার সংখ্যা বাড়ানো হলেও এবার গত বছরের তুলনায় বাড়ছে ১০০ প্রতিমা । ৮০১টি প্রতিমায় শারদীয় দূর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে এই পূজামন্ডপে ৷ আর সাথে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে ৷
প্রতিমা তৈরীর কারিগর কয়রা উপজেলার হাতিয়াডাঙ্গা গ্রামের মৃৎশিল্পি বিজয় কৃষ্ণ বাছাড় জানান, তিনি গত কয়েক বছর ধরেই এই মন্ডপের প্রতিমা তৈরীর কাজ করছেন ৷ গত সনের ১লা বৈশাখ থেকে তিনি ১০/১৫ জন ভাস্কর নিয়ে প্রতিমা তৈরীর কাজ শুরু করেছেন ৷ পুরো প্রতিমার কাজ শেষ করতে ৭/৮ মাস সময় লাগছে ৷ তবে এখনও সাজসজ্জার অনেক কাজ বাকী ৷ পূজা আয়োজকের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, মন্দির কর্তৃপক্ষের চাহিদা একটাই আর সে চাহিদা হলো ধর্মানুরাগীদের সন্তুষ্ট করা। সে লক্ষ্যে তিনি কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা মোতাবেক হিন্দু সনাতন ধর্মাবলম্বনে সত্য, ত্রেতা, দ্বাপর আর কলি যুগের বিভিন্ন অবতারের লীলা কাহিনী নিয়ে এবারও প্রতিমা গুলি তৈরী করা হয়েছে। যা ভক্তদের আনন্দ দেবে ও সর্বোপরী ধর্মীয় নানা বিষয় সম্পর্কে ধর্মানুরাগী মানুষকে আকৃষ্ট করবে ৷
দেখা গেছে, প্রতিমাগুলো কয়েকটি সারিতে দুপাশে বিন্যাস করে সাজানো ৷ পূজোর সময় ভিড় নিয়ন্ত্রনে রাখা হয়েছে একমূখী রাস্তা ৷ তার দুপাশেই সাজানো হচ্ছে নানা ধরনের প্রতীমা ৷ এর মধ্যে হিন্দু বিভিন্ন ধর্মীয়গ্রন্থ ও পৌরানিক বিষয়াবলীকে প্রতিমার মাধ্যমে রূপায়ন করা হয়েছে ৷ যেমন দশমহাবিদ্যা, দেবতাদের প্রার্থনা, শ্রীরামচন্দ্র, শ্রীকৃষ্ণের ঝুলন, ধনু বিদ্যাভ্যাস,শিব পার্বতীর কাহিনী সহ অসংখ্য ধর্মীয় বিষয়াবলী আছে । সামাজিক সচেতনতা বাড়াতে আছে বিভিন্ন সামাজিক বিষয় নিয়ে তৈরী প্রতিমা। এ মন্দিরের পৃষ্ঠপোষক লিটন শিকদার জানান, হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দূর্গাপূজা অনুষ্ঠান। ২০১১ সালে এ পূজার আয়োজন করা হয়। তার পিতা দুলাল শিকদার এই পূজামন্ডপের সভাপতি ছিলেন৷ এ বছরই তিনি পরলোকগত হয়েছেন ৷ তার আত্নার মঙ্গলার্থেই ৭০১ টি থেকে বাড়িয়ে ৮০১টি প্রতীমা করা হয়েছে ৷

এসপ্লাস/এসএসএ/২০১৯




%d bloggers like this: