অবৈধভাবে বালি চুরি রুখে দিলেন গ্রামবাসীরা

পূর্ব বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমান জেলার বুদবুদ থানার চাকতেঁতুল অঞ্চলের শালডাঙ্গা গ্রামের আজ দুপুর ১২টার ঘটনা । স্থানীয় শাসকদলের নেতাদের মদতে দীর্ঘ দিন ধরে রণডিহা,মুনসেফপুর, সাঁকুড়ি গ্রামে তৈরি হয়েছে অবৈধ বালি ঘাট। সেখান থেকে দিনে দুপুরে প্রসাশনের নাকের ডগায় সরকারের কোটি কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অবাধে চলছে অবৈধ বালি চুরি।শালডাঙ্গা ডেভলপমেন্ট কমিটির সদস্য বামদেব পাঁজা, সেক্রেটারি নারায়ণচন্দ্র পাঁজা’র নেতৃত্বে গ্রামের প্রায় কয়েকশো মানুষ আজ বালি ভর্তি দুটি ওভার লোডিং ট্রাক্টর আটকে চালান দেখতে চান কিন্তু তারা তা দেখাতে না পারায় গাড়ি দুটি আটকে বিক্ষোভ দেখান
। তারা স্থানীয় বি.এল.আর.ও কে বেশ কয়েক বার ফোন করলেও কোনো সাড়া পাননি , পরে বুদবুদ থানার পুলিশকে খবর দিলে অনেক টালবাহানার পর গাড়ি দুটি আটক করে থানায় নিয়ে যান। পুলিশকে সামনে পেয়ে শালডাঙ্গার গ্রামবাসীরা বিক্ষোভ দেখান এবং পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে পাশের মুনসেফপুর(সদ্য তৈরি হয়েছে) ও সাঁকুড়ি গ্রামের তৈরি হওয়া অবৈধ বালি ঘাটে গিয়ে বালি তোলা বন্ধ করে দেন । গ্রামের ডেভলপমেন্ট কমিটি র সেক্রেটারি নারায়ণচন্দ্র পাঁজা জানান, “কিছু মুনাফা লোভী বালি মাফিয়া ও স্থানীয় শাসকদলের নেতাদের মদতেই চলছে এই অবৈধ বালি চুরির কারবার । ফলে বিভিন্ন অসুবিধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে আমাদের। নদীর থেকে গ্রামের দূরত্ব মাত্র হাফ কি.মি.। অনিয়ন্ত্রিত ভাবে বালি তোলায় মাত্র ২কিমি দূরে অবস্থিত রণডিহা দামোদর নদে ব্যারাজ যে কোনো সময় ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে,যে কোনো সময় গ্রামবাসীরা বন্যা কবলিত হতে পারে। চাষের জমি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে । তাছাড়া রাস্তার হাল বেহাল । স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা বালি গাড়ির দৌরাত্বে রাস্তায় চলাচল করতে ভয় পায়। পাশের মুনসেফপুর গ্রামের একটা জলজ্যান্ত ফুটবল খেলার মাঠ তারা নষ্ট করে দিয়েছে । পাশের সাঁকুড়ি গ্রামের রাস্তার রাস্তার দু’পাশ তো বালির পাহাড় করে রেখেছে মাফিয়ারা। আমরা বাঁকুড়া ও পূর্ব বর্ধমান জেলার ডি.এম,বি.এল.আর.ও, বিডিও, লোকাল থানায় দীর্ঘদিন ধরে অভিযোগ করলেও আজও এর কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি । আমরা এর একটা সমাধান চাইছি । আমরা আজ বিভিন্ন সাংবাদিক বন্ধুদের মাধ্যমে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাইছি।”




%d bloggers like this: